দুবাই সম্পর্কে আশ্চর্য কিছু অজানা বিষয় যা দেখে আপনি অবাক না হয়ে পারবেন না।

আজ আমরা আপানকে দুবাই এর এমন কিছু আশ্চর্য অজানা বিষয় জনাবো যা শুনে আপনি অবাক না হয়ে পারবেন না ।

দুবাই সম্পর্কে আশ্চর্য কিছু অজানা বিষয় যা দেখে আপনি অবাক না হয়ে পারবেন না।

দুবাইতে এমন কিছু অদ্ভুত জিনিস আসছে যা শুধুমাত্র দুবাইতেই সম্ভব এবং তা শুধু আপনি দুবাইতেই দেখতে পাবেন । অসাধারণ সুন্দর এবং চোখ ধাধানো একটি দেশের নাম দুবাই।


দুবাইতে প্রথম ঘুরতে গেলে আপনার মনে হবে আপনি অন্য কোন দুনিয়ায় চলে এসেছেন কারন দুবাইয়ের সাজসজ্জা যেমন অসাধারণ, তেমনি অদ্ভুত সেখানকার লোকজনদের অভ্যাস আর তাদের বসবাস করার জায়গাগুলিও।

তো চলুন আজ জেনে নেয়া যাক দুবাই সম্পর্কে এমন কিছু ব্যাপার যা শুধুমাত্র দুবাইতেই সম্ভব ।


পশু-পাখিকে ভালোবাসা না এমন লোক খুঁজে পাওয়া খুবই দুষ্কর আর এই জন্যই মানুষ বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ধরনের পশু পাখি পোষে থাকে ৷

এসব পোষা প্রাণীর তালিকায় সাধারণত থাকে কুকুর বা বিড়াল কিন্তু দুবাইয়ের ব্যাপারেই কিছুটা অন্যরকম।

এখানকার কেউই কুকুর-বিড়াল রাখা পছন্দ করে না। নিজেদের টাকার গরম দেখাতে তারা দামি কুকুর বিড়াল পালন করেন না তার জাগায় তারা পালন করে আস্ত বাঘ সিংহকে।মনে হয় দুবাই লোকেরা বিপদ কাঁধে নিতে খুব পছন্দ করে ।


আমরা সাধারণত টেনিস বা ফুটবল মাঠে খেলে থাকি আগেই বলেছিলাম দুবাই লোকেরা বিপদ কাঁধে নেয়ার মত এডভেঞ্চার খুব পছন্দ করে।তারই ফলশ্রুতিতে তারা টেনিস একেবারে আকাশের চূড়ায় ছোঁয়া বিল্ডিংয়ে খেলতে বা দেখতে পছন্দ করে। শুনতে পাগলামি মনে হলেও এখানকার খুবই জনপ্রিয় বিষয় এটি।


আপনি কিসের উপরে রাইডিং করতে পছন্দ করেন? সাধারণভাবে এই প্রশ্নটিই করলে উত্তর হয়তো 31 মিলবে ঘোড়া অথবা মোটরসাইকেল ।চোখ বন্ধ করে যেতে থাকুন কোথাও যদি দেখেন কেউ সিংহের পিঠে চড়ে ছুটছে, তাহলে বুঝবেন আপনি দুবাইতে এসে পৌঁছেছেন ।


দামী জিনিসের প্রতি দুর্বার আকর্ষণ দুবাই লোকেদের সব সময়ই, দুবাই লোকেদের মুখে একটি কথা প্রচলিত আছে যে এমন কামাও যেন দুবাই তোমার কাছে সস্তা লাগে ।যে কোনো সস্তা জিনিসের অযথা টাকা ঢেলে লোক দেখানোই দুবাই লোকেদের প্রথম পছন্দ যেমন RENTES ধরুন কার ডেলিভারির মতন সস্তা বিষয়টিকেও দুবাই লোকেরা নিয়ে গেছে এক অন্য মাত্রায়।


এজন্যই সেখানকার কার ডেলিভারি হয় হেলিকপ্টার দিয়ে । আর এই কার ডেলিভারি চাইলে আপনি যে কোন জায়গাতে নিতে পারেন হোকনা সে একশ তালা বিল্ডিং এর ছাদের ওপর ।তারা এইভাবে ডেলিভারি কেই সবচেয়ে বেশি নিরাপদ বলে মনে করে। আর এজন্যই এখানকার লোকজন তাদের বিলাস বহুল কার ডেলিভারির জন্য হেলিকপ্টারই কে সবচেয়ে বেশি পছন্দ করে ।


দুবাই প্রায় পুরোটা জুড়েই রয়েছে মরুভূমি। আর সে কারণে এখানে প্রচণ্ড গরম পরে। আচ্ছা আমি যদি বলি বছরের বারোমাসই আপনি দুবাই এর মরুভূমিতে আইস স্কিং এর মজা নিতে পারবেন তো চমকাবেন না ।আপনাকে মল অফ এমিরাতস এ যেতে হবে আর ইনডোর আইস স্কিং মজা উঠতে পারবেন । মরুভূমির মত এক দেশে এটা সত্যি অবাক করার মত ।


আমাদের দেশের লোকেরা সোনা পরতে খুব ভালোবাসেন শুধু আমাদের দেশে না পৃথিবীর সব দেশের লোকেরাই গোল্ড পরতে পছন্দ। কিন্তু দুবাই লোকেদের সোনা পরা নয় চালাতে বেশ পছন্দ । মানে এখানকার কারও সোনার তৈরি।দুবাইতে গোল্ড কার একেবারে স্বাভাবিক ঘটনা যেগুলো আপনি হরহামেশাই রাস্তাঘাটে চলতে দেখতে পারেন । সোনালি রং এর এই গাড়ি গুলো কিন্তু পিওর গোল্ড পেটেড এর তৈরি ।


বাস্তবে না দেখলেওটিভিতে অথবা ইন্টারনেটে ঘোড়া রেস অথবা উটের রেস আপনার দেখেছেন নিশ্চয়ই ।দুবাইতেও উটের রেস হয় কিন্তু তাঁরা এই রেস কে নিয়ে গেছে অন্য এক মাত্রায় তাদের এই রেসে উটগুলো জকিরা চালায় না বরং জকির জাগায় তারা রোবট কে ব্যাবহার করে।


দামি সুপার কার, কার না কেনার ইচ্ছা আছে । আমাদের এখানাকার কোটি পতিদের একটি সুপার কার কিনতে রীতিমত নাভিশ্বাস উঠে যায়।কিন্তু দুবাইতেএমন একটি কার ইয়ারট আছে যেখানে বিভিন্ন সুপার কার কিছু দিন ব্যাবহারের পরই ফেলে রাখা হয় । আমাদের সবার স্বপ্নের গাড়ি সেখানে ময়লার স্তুপে পড়ে আছে ।দুবাই যে কি পরিমান বড়লোক দেশ তা এ ঘটনাটিতেই বোঝা যায়। এখানে ফেরারির মতন দামি গাড়ি প্রতিদিনই পরেপরে ধুলো খাচ্ছে।


আমাদের দেশে কমোড গুলো সাধারণত সিরামিকের তৈরি হয় কিন্তু এই আলিশান দেশের কারো কারো কমোডও সোনার তৈরি হয়।দুবাইতে কিছু অবিশ্বাস্য ধনী শেখ আছে যাদের কমোডও হয় সোনার তৈরি ।


প্রত্যেক দেশেই কুকুর বিড়ালকে নিয়ে বাহিরে ঘুরতে যাওয়া একটি সাধারণ ঘটনা । কিন্তু যদি কেউ শুধুমাত্র উটকে নিয়ে ঘুরতে যাওয়ার জন্য কোটি খরচ করে।তাহলে কিন্তু এটি কোন সাধারন ঘটনা না। আর দুবাইতে হরহামেশাই তা দেখতে পাবেন ।


দামি ফোন বলতে সাধারণত আমরা আইফোনকে বুঝি । আইফোন ব্যবহারের মাধ্যমেই আমরা আমাদের আভিজাত্যকে তুলে ধরতে চেষ্টা করি।আর এই আইফোন পাওয়ার জন্য মূলত চুকাতে হয় হয় অনেক । কিন্তু সাধারন আইফোনের কোন বেইলই নেই দুবাইতে।দামি ফোন বলতে এখানে বোঝায় সোনার তৈরি ফোন যার বাটন গুলো হীরার তৈরি ।


এটিএম থেকে টাকা বের হতে তো আমরা সবাই দেখেছি কিন্তু দুবাইতে গোল্ড এতই জনপ্রিয় যে এখানে গোল্ড এর জন্যও এটিএম বুথ বসানো আছে ।যেখানে থেকে সোনার বিস্কুট বের হয় ।


পৃথিবীর প্রায় সব জায়গাতেই পুলিশ জিপ অথবা এস ইউ ভি কার ইউজ করে কিন্তু এখানকার পুলিশ পৃথিবীর সবচেয়ে দামি গাড়ি ব্যবহার করে যার মধ্যে ল্যাম্বরগিনি ফারারিও রয়েছে ।অনেক পর্যটকই মাঝে মাঝে ইচ্ছে করেই ছোট কিছু আইন ভাঙ্গে যাতে পুলিশের সুপার কারে উঠতে পারে ।


ট্রাফিক জ্যাম এক বিরক্তিকর শব্দ । আপনি যদি কার লাভার হন আর দুবাইতে যদি আপনি ট্রাফিক জ্যাম এ পড়েন তাহলে নিজেকে সবচেয়ে বেশি সৌভাগ্যবান মনে করবেন।কারণ আপনি নিজেকে চতুর্দিক থেকে ঘিরে রাখা সুপার কার এর মধ্যে আবিষ্কার করবেন ।পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশি সুপার কার দুবাইতেই আছে।


দুবাইতে এরকম আরো অনেক কিছু আছে যা দেখলে আপনি অবাক না হয়ে পারবেন না আর যেগুলো শুধু মাত্র দুবাইতেই দেখতে পাওয়া সম্ভব ।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
* Please Don't Spam Here. All the Comments are Reviewed by Admin.