হযরত হাওয়া আ. এর জীবনী

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম 

আদম (আ.)-এর স্ত্রী বিবি হাওয়া,হজরত হাওয়া যেভাবে সৃষ্টি হলেন
হযরত হাওয়া আ.







হযরত আদম (আ.)-এর স্ত্রী বিবি হাওয়াঃ

হযরত হাওয়া (আ.) পৃথিবীর প্রথম মানুষ ও প্রথম নবী হযরত আদম (আ.)-এর স্ত্রী । হযরত আদম (আ.) আদি পিতা আর হযরত হাওয়া (আ.) পৃথিবীর সকল মানুষের মা। 


হজরত হাওয়া যেভাবে সৃষ্টি হলেনঃ


আল্লাহ তাআলা তাঁর বিশেষ শক্তির দ্বারা হযরত হাওয়া (আ.)কে হযরত আদম (আ.)-এর বাম পাজরের হাড় থেকে সৃষ্টি করেছেন। তারপর হযরত আদম (আ.)-এর সাথে বিবাহ দিয়েছেন। 

তাঁদের উভয়কে জান্নাতে থাকার স্থান দিয়েছেন। আর জান্নাতের বিশেষ একটি গাছের ফল খেতে নিষেধ করেছেন। শয়তান তাঁদেরকে এই বলে ধোঁকা

দিয়েছে যে, তোমরা এই গাছের ফল আহার করলে জান্নাতে চিরস্থায়ী হতে পারবে । তাঁরা শয়তানের ধোঁকায় পড়ে সেই গাছের ফল খেয়েছেন। তখন আল্লাহ তাআলা আদেশ করেছেন : তোমরা জান্নাত ছেড়ে পৃথিবীতে নেমে

 যাও। হযরত আদম (আ.) পৃথিবীতে এসে নিজের ভুলের জন্য খুব কেঁদেছেন। আল্লাহ তাআলা তাঁর ভুলকে ক্ষমা করে দিয়েছেন। ইতিপূর্বে হযরত হাওয়া (আ.) হযরত আদম (আ.) থেকে আলাদা হয়ে গিয়েছিলেন। (এক


 জয়ীফ বর্ণনামতে জান্নাত থেকে হযরত আদম [আ.]কে হিন্দুস্তানে এবং হযরত হাওয়া [আ.]কে জেদ্দায় নামানো হয়েছিল।) আল্লাহ তাআলা উভয়কে একত্রিত করে দিয়েছেন। অতঃপর তাঁদের থেকে অসংখ্য সন্তান সন্ততি হয়েছে ।এখান থেকেই মানব জাতির সুচনা হয়।

শিক্ষনিয় বিষয় হলো  আদম (আ.)-এর ন্যায় হযরত হাওয়া (আ.)ও ভুল করেছেন, আবার তওবাও করেছেন । আমাদের অনেক মা-বোন আছেন যারা নিজেদের ভুল হয়ে গেলেও তা স্বীকার করতে চান না বরং নিজেকে

 নির্দোষ প্রমাণ করার জন্য নানা রকম কথা ও কারণ তৈরি করেন। কোনভাবেই যেন নিজেদের উপর দোষ না আসে তার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করেন। ফলে কখনও সেই পাপ থেকে তওবা করা হয়ে ওঠে না। কারণ পাপকে পাপ


 মনে করলেই তো তার জন্য তওবা আসবে। এমনও অনেক মহিলা আছেন, যারা জীবনভর পাপ করে যাচ্ছেন, অথচ তা বর্জনের নাম গন্ধও নেই । বিশেষত গীবত করা ও রছম কুসংস্কার পালন করা মহিলাদের


 একটি দুরারোগ্য ব্যাধিতে পরিণত হয়েছে। কোনভাবেই তারা রছম ও বেদআত-কুসংস্কার ছাড়তে চান না। এই অভ্যাস ছেড়ে দিতে হবে । পাপকে পাপ বলে স্বীকার করে নিয়ে সঙ্গে সঙ্গে তওবা করে নিতে হবে

হযরত আদম (আ.) ও হযরত হাওয়া (আ.)-এর ঘটনা থেকে একথাও বোঝা যায় যে, আল্লাহ তাআলা মানব জাতিকে জান্নাতের জন্য তৈরি করেছেন। এজন্যই মানব জাতির আদি পিতা মাতাকে জান্নাতেই রাখা হয়েছিল ।

 আমাদের আসল বাড়ি হল জান্নাত । আমাদের আসল ঠিকানা হল জান্নাত । দুনিয়া আমাদের আসল বাড়ি নয়, দুনিয়া আমাদের আসল ঠিকানা নয় । তাই আসল বাড়ির জন্য, আসল ঠিকানার জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হবে ।


অবশ্যই পড়ুন,

মানব সৃষ্টির মূল উদ্দেশ্য কি?

কিভাবে মানব ধারা বিস্তার লাভ করেছে?

হযরত আয়েশা (রাযি.) এর জীবনী

হযরত খাদিজা (রা.) এর ইসলাম গ্রহণঃ

মহীয়সী নারী বিবি রহমত


إرسال تعليق

أحدث أقدم